বহুরূপী হিমালয়

ভোজবাসার দুই কিলোমিটার সামনে থেকে শিবলিং দর্শন। [ছবি] শাহাদাত হোসাইন সরকার ভারতবর্ষের মাথার মুকুট হয়ে উত্তর দিক জুড়ে অবস্থান করছে হিমালয়। যুগের পর যুগ ধরে সারা পৃথিবীর অভিযাত্রীদের কোন এক মহাজাগতিক আকর্ষণে নিজের কাছে টেনে আনছে হিমালয়। আল্পস হোক বা আন্দিজ, সাহারা মরুভূমি হোক বা অ্যান্টার্কটিকা, ব্রাজিলের আমাজন হোক বা মঙ্গোলিয়ার

প্রাচীন অন্ধকারে

গত কয়েকদিন আগের ঘটনা, বিশ্বের সবচেয়ে রোমহর্ষক আর দম বন্ধ করা ঘটনার সাক্ষী হলাম আমরা বিশ্ববাসী। থাইল্যান্ডের মে সাই (Mae Sai) শহরে থাম লুয়াং নাং নন কেভ এ ঘুরতে গিয়ে আটকা পড়ে ১২ জনের একটা ফুটবল টীম (যাদের প্রত্যেকের বয়স ১২ থেকে ১৭ এর মধ্যে) এবং তাদের কোচ (বয়স ২৫

চিয়াসটপই

ছবি [সন্দীপ রায়] সকালে ঘুম ভাঙ্গল সন্দীপের ডাকে। গতকাল রাস্তা ভুল করে আমরা দুজন এই পাড়াতে চলে এসেছি। কিন্তু তাতে ভালই হয়েছে, কারণ কাল থেকে পাড়ার মানুষের আতিথেয়তায় আমি মুদ্ধ। রাতে কারবারি দাদা মুরগি দিয়েছিল খাবার জন্য। অনেকদিন পর যেন কাল পেট ভরে খেলাম। রাতে এক দাদার সাথে পরিচয় হয়েছিল যিনি

হিম ফুলের উপত্যকায়

এটা ছিল আমার হিমালয়ে প্রথম ট্রেকিংয়ের  অভিজ্ঞতা। প্রায় তিন  বছর আগে বিবিসিতে ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স নিয়ে চার মিনিটের একটা  ডকুমেন্টারি ফিল্ম দেখেছিলাম, তারপর থেকেই জায়গাটা সম্পর্কে খোঁজ খবর নেওয়া শুরু করলাম। যতই খোঁজ নিচ্ছিলাম ততই অবাক হচ্ছিলাম। ভ্যালি অফ ফ্লাওয়ার্স আবিষ্কৃত হয় ১৯৩১ সালে। ফ্রাঙ্ক স্মিথ ১৯৩১ সালের জুলাই মাসে মাউন্ট কামেটে

ট্রেক বিবরণী: জো-ত্লং | জেবিটিএমসি

সবুজ প্রকৃতির সান্নিধ্য যে কারো মন ভালো করে দেয় নিঃস্বন্দেহে। নিখাদ সবুজ প্রকৃতির নয়ন জুড়ানো বর্নছটা দেখতে চাইলে প্রথমেই চলে আসে আকাশ, পাহাড় আর মেঘের মিতালির কথা। আর এই মেঘ পাহাড়ের সখ্য যেনো বান্দরবানকে ঘিরেই। এক কথায় বলাই যায় পাহাড়ের দেশ মানেই বান্দরবান, সবুজের দেশ মানেই বান্দরবান, মেঘ পাহাড়ের মিতালির দেশ