বেইজ জাম্প দূর্ঘটনায় রাশিয়ান অ্যাল্পাইনিস্ট নিহত

৭২২০ মিটার উচ্চতার চাঙৎসে চূড়া থেকে উইং স্যুট পড়ে লাফিয়ে পড়ার পরমুহুর্তে। ছবি: রেডবুল কনটেন্ট পুল 


৫২ বছর বয়সী প্রখ্যাত রাশিয়ান অ্যাল্পাইনিস্ট ও বেইজ জাম্পার ভ্যালেরি রজভ নিহত হয়েছেন। মৃত্যুর কারন যথাযথভাবে এখন পর্যন্ত জানা না গেলেও গতকাল ১২ নভেম্বর নেপালের জাতীয় দৈনিক ‘দ্যা হিমালায়ান টাইম’ মিংমা গেলু শেরপা কে উদ্ধৃত করে জানায়,  “ নেপালের আমা দাবলাম পর্বত থেকে উইং স্যুট পড়ে বেইজ জাম্প দেবার সময় রজভের মৃত্যু হয়”।

ভ্যালেরি রজভের স্পন্সর প্রতিষ্ঠান রেডবুল তাদের অফিসিয়াল সাইটে ঘোষনা দিয়ে তার মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করে জানায়,

“আমরা অত্যন্ত দুঃক্ষের সাথে জানাচ্ছি, নেপালের পূর্ব হিমালয়ে অবস্থিত আমা দাবলাম পর্বতে অভিযান চলাকালীন সময়ে ভ্যালেরি রজভ মারা গেছেন”।

রাশিয়ার নভগরোদ অঞ্চলে ১৯৬৪ সালে জন্ম নেয়া এই অ্যাল্পাইনিস্ট শুরু থেকেই অপ্রচলিত পথে দূর্গম সব পর্বতে অভিযান চালিয়ে এসেছেন। এরপর একসময় আরও  অ্যাডভেঞ্চার ও এড্রিনালিন রাশের জন্য তিনি ঝুঁকিপূর্ণ এরিয়াল স্পোর্টসের দিকে ঝুঁকে পড়েন। পরপর দু’বার স্কাই ডাইভিং প্রতিযোগীতায় বিশ্ব সেরা হবার পর পর্বতারোহণের সাথে সাথে বেইজ জাম্পিংয়ে তিনি আকৃষ্ট হয়ে পড়েন। পর্বতারোহণ ও বেইজ জাম্পিংকে এক অন্য উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া এই দুঃসাহসিক এথলিট তার প্রথম বেইজ জাম্পটি দিয়েছিলেন ২০১০ সালে অ্যান্টার্টিকা মহাদেশের ২৯৩১ মিটার উচ্চতার উলভেতানা চূড়ার উপর থেকে।

এই ফ্লাইটের সময় তাপমাত্রা হিমাঙ্কের ৩০ ডিগ্রি নিচে নেমে গেলে তার শরীরের পেশী গুলো সব জমে যায়। কিন্তু আকাশে ভাসতে ভাসতে তিনি উপলব্ধি করেন এত বিশুদ্ধ রোমাঞ্চের স্বাদ তিনি এর আগে কখনো অনুভব করেন নি। এই অভিজ্ঞতা তার জীবন আমূল পাল্টে দেয়। পৃথিবীর পর্বতশ্রেণী গুলোর জটিল ও দূরহ সব রুট দিয়ে পর্বত চূড়ায় আরোহণ করে উইং স্যুট পড়ে উড়তে উড়তে উপত্যকায় নেমে আসা তার কাছে নেশার মত হয়ে উঠে।


দক্ষিন আমেরিকার সর্বোচ্চ বেইজ জাম্প দিচ্ছেন ভ্যালেরি রজভ।


২০১৫ সালে আফ্রিকার সর্বোচ্চ চূড়া কিলিমাঞ্জারোর চূড়া থেকে বেইজ জাম্প দেয়ার পর সব কটি মহাদেশের উঁচু ও বেইজ জাম্প দেয়া সম্ভব এমন চূড়ায় তিনি আরোহণ করেছেন। এ বছরের জুলাই মাসে আন্দিজ পর্বতমালার ৬৭২৫ মিটার উচ্চতার হুয়াসকারান চূড়া আরোহণ করে উইং স্যুট ব্যবহার করে কয়েক মুহুর্তের মধ্যে বেইজ ক্যাম্পে নেমে আসেন। এছাড়া তার বিখ্যাত আরো কিছু বেইজ জাম্প হল ২০১২ সালে ভারত হিমালয়ের মাউন্ট শিবলিঙ ও ২০১১ সালে আল্পস পর্বত্মালার মঁ ব্লা, কারাকোরামের আমিন ব্রাকের পশ্চিম গাত্র, কানাডার বাফিন দ্বীপের গ্রেট সেইল পর্বত প্রমুখ।

২০১৩ সালে এভারেস্ট ম্যাসিফের ৭২২০ মিটার উচ্চতার চাঙৎসে চূড়া থেকে উইং স্যুট পড়ে নিচে লাফিয়ে পড়ে সবচেয়ে উঁচু স্থান থেকে বেইজ জাম্পিংয়ে তিনি বিশ্ব রেকর্ড করেন। এর ঠিক তিন বছরের মাথায় এই প্রতিভাবান এথলিট পৃথিবীর ৬ষ্ঠ উচ্চতম চূড়া চো ইয়্যু’র ৭৭০০ মিটার উচ্চতা থেকে বেইজ জাম্প দিয়ে নিজের পূর্বের রেকর্ডটি ভেঙে ফেলেন।

(Visited 1 times, 1 visits today)

মন্তব্য করুন

*Please Be Cool About Captcha. It's Fun! :)